Who am I

My name is Mohammed Abdulhaque

I am the author and the admin of this site. I am a creative person. I write poems and novels. I publish my own works, I am also a music composer. I make my own music video too. I do photoshop, Illustrator, InDesign. If you need help publishing your books please message me.

Message me


আমার নাম মোহাম্মাদ আব্দুলহাক

jpeg 1আমি এক সাধারণ মানুষ। আমার জন্ম লামালসূলপুর গ্রামের লাউতলি বাড়িতে। আমি জাতে বাংলাদেশি। ছোট কাল থেকে লেখার প্রতি আমার ঝুঁক ছিল, এখন নেশা হয়েছে, সাধানাও বলা যায়। মাঝে মাঝে যোগীদের মত চোখ বন্ধ করে জপতপ হুম করি। কাব্যসাধনার ব্রত করেছি আমি কাব্যসাধক হতে চাই। এখন পর্যন্ত তিন হাজারের অধিক কবিতা এবং চল্লিশ টার মত উপন্যসা লিখেছি। তার মধ্যে তিন টা ইংলিসে। বাংলায় একটা মহোপন্যাস লেখার কাজ করছি। ওটাকে মাত্র দুই হাজার পৃষ্টায় নেবার চেষ্টায় আছি। ছোট কালে লেখালেখির ষোলকলা শিখতে চেয়ে আমি তিলকমাটিতে সেজদা করে খড়িমাটি দিয়ে লেখারম্ভ করেছিলাম। কলাবিদ্যায় হায়ন গত হলে ষোলতে মানসীর চুম্বন যেন খড়িশের ছোবল ছিল, তীব্র বিষযুক্ত অধরমধু চোষে বিমনা হয়েছিলাম। বয়স বেড়ে চিন্তাশক্তি সমৃদ্ধ হয়েছে চিন্তার ক্ষমতা, বিধেয় নিদিধ্যাসন এবং অভিধ্যান করে লেখি। কল্পবৃক্ষের ছায়ে বসে চিন্তাপ্রবণ হলে মন ভাবুক হতে চায়। চিন্তাক্লিষ্ট হয়ে ভাব সাগরে ঝাঁপ দেই। অকূলে কূল পাওয়ার জন্য দিবাতন সাঁতরাই আমি থই পাই না। চিন্তাকুল কোথায় জানি না। জোয়ারভাটাতে দুলে দেখার অনেক চেষ্টা করেছি কিন্তু দৃষ্টি গোচর এখনো হয়নি। উজান অথবা ভাটি, যে দিশে যাই না কেন কূল পাব। হয়তো স্বর্গ নতুবা নরক। তবে স্বর্গে যেতে চাই আমি চিন্তাভাবনা করে চিন্তক হয়েছি মাওলাকে মনের আসনে বসাবার জন্য। অন্তরকে পরিষ্কার করার চেষ্টায় আছি। অন্তর্যামী তো অন্তরে বসে আছেন। তাই বেশি মাথা ঘামাই না। মনে সদা ভয়, তাই কারো মনে দুঃখ কষ্ট দিতে চাই না। চিন্তাশক্তি হল নৈসর্গিত প্রতিভা এবং প্রাকৃতিক পরিবেশে নৈসর্গিক চিন্তার খোরাক আছে। নির্জন নিরালায় বসে চিন্তায় নিমগ্ন হই। ধূপের গন্ধে সুগন্ধী ধোঁয়া আগুন থেকে উৎপন্ন মেঘের মত হালকা বায়ব্য পদার্থ আবছা হয়ে উদগীর্ণ হয় অচিন্ত্য বিষয়ের মত ঘনায়মান। নবোদিত ধোঁয়া ও কুয়াশার মিশ্রণে অস্পষ্ট পরিবেশে ধ্যাতা এবং ধ্যানীরা বসে বুদ্ধির গোড়ায় ধোঁয়া দেয় বুদ্ধিকে সজাগ করার জন্য চিন্তাশক্তিকে প্রগাঢ়। ধূমিত পরিবেশে চিন্তিত হলে রোমে রোমে ধূমোদগার হয় চৌষট্টি কলা পরিলক্ষিত। সব সত্য, সাথে এও সত্য যে, খামোখা চিন্তা করলে; কানা খোঁড়ার একগুণ বাড়ে এবং কানা গরু ভিন্ন পথে দৌড়ে। তবুও চিন্তা করা ভালো। চিন্তায় মন নিষ্কলঙ্ক হয় পবিত্র!


কোনো একদিন কবিতা লিখতাম,

নিরিবিলি বসে পড়তাম। তখন আমি নির্জন নিরালাকে সাথি করেছিলাম। কষ্ট হতো যখন হাঁইহুই করে কেউ নীবরতা ভাংতো। তারপর কী যেন হয়েছিল? কলম লুকিয়ে রেখে কম্পিউটারে লিখতে শুরু করি। তা কয়েক হায়ন আগের গল্প। কবিতার বাজারে এখন খড়া, কেউ কেউ বলে কবিতামান্দ্য। তো আর কী করা! ছোট গল্পকে টেনটুনে উপন্যাস আর উপন্যাসকে টেনে মহাউপন্যাস এবং কবিতাকে বানিয়েছি মহাকাব্য। কিন্তু! আমি নিস্তার পাইনি! এখনো যখন একা বসি, নির্জন, নিরালায়, মন মিনমিন করে বলে, আমি নিরিবিলি বসতে চাই, একটা কবিতা লেখার জন্য।


আমি লেখালেখি করি…

লেখালেখি আমার বাল্যাভ্যাস। খাতা কলম হাতের কাছে পেলে আমি নাওয়া খাওয়া ভুলে থাকতাম। এখন কম্পিউটার সামনে পেলে আরামের ঘুম হারাম হয়। আমার একটা বেমার আছে। বেমারের নাম বানানকানা। আমি দেখে দেখে বানান ভুল লেখি। ব্যাকরণ নিয়ে তেমন মাথা ঘামাই না। ব্যাকরণ হলো অশরীরী। শরীর হলো ভাষা। বাংলা আমার মনের ভাষা। ইংলিসে লিখতে পারলেও অনেক সময় বিপাকে পড়তে হয়। কিন্তু বাংলায় ঘুরপাক খেলেও মাথা ঘুরে না। মনের ভাষাতো, টেনেটুনে মিলাতে পারি। লেখালেখির সুবাদে অনেকের সাথে পরিচিত হয়েছি।


সাধনা করতে হলে চিন্তা করতে হয়, লেখক হতে হলে সত্য লিখতে হয়।


সত্যানুরাগী লেখকরা বাস্তববাদী এবং সাম্যবাদী। সত্যবাদীরা দৃঢ়প্রতিজ্ঞ এবং সত্যরক্ষার জন্য নির্দ্বিধায় সত্য কথা বলে।
মনে রাখবেন, মন্তব্যে মনের পরিচয় মিলে। ভালো লোক কখনো অন্যকে বিপাকে ফেলে না।
সত্য মুসলমান নিজে সতৃষ্ণ থেকে অন্যকে তৃষ্ণার পানি দেয়, এ আমার বিশ্বাস।